বয়স ৩০ পার হওয়ার পর ক্যারিয়ার পরিবর্তন করা ৬ সফল ব্যক্তি!

0
891

ক্যারিয়ার পরিবর্তন, তাও বয়স ৩০ পার হওয়ার পর? আমাদের দেশ ও সমাজের প্রেক্ষিতে খুব একটা  ভালো দৃষ্টিতে দেখা দেখা হয়না বিষয়টি। বিশ্ববিদ্যালয় জীবন শেষ হওয়ার পর, নিয়তির পরিক্রমায় যে চাকরী পাই, সেটি পরিবর্তনের সাহস খুব কম মানুষেরই হয়।

৩০ পেরিয়েও ক্যারিয়ার পরিবর্তন করে সফল হওয়া যায়, এই ৬ ব্যক্তি তার প্রমাণ, আজকের আয়োজন এমনই ৬ বিখ্যাত ব্যক্তি নিয়ে। চলুন দেখে আসা যাক-

১. ডোয়াইন জনসনঃ অনেকেই আমরা তাকে ‘দ্য রক’ নামেই চিনি। শুরুটা প্রফেশনাল ফুটবলার হিসেবে হলেও, ১৯৯৬ সালে World Wrestling Entertainment(WWE)- তে অংশগ্রহণ করে পরিচিতি পান ‘দ্য রক’ হিসেবে। রিং এর খ্যাতি তার হলিউডের প্রবেশকে আরও সহজ করে দেয়।

ডোয়াইন জনসন

প্রথম মুভি ‘দ্য স্করপিয়ন কিং’-এ ৫.৫ মিলিয়ন ডলার আয় করেন, অভিষেকে যা রেকর্ড হয়ে আছে। পরে রেসলিং ছেড়ে পাকাপোক্ত আসন করে নেন হলিউডে। তার মতে, “জীবনে বিপর্যয়ের মুখে ক্যারিয়ারের অদলবদল বেশ চিন্তা সাপেক্ষ বিষয়। তবে আমি সঠিক সিদ্ধান্তটি নিতে পেরেছিলাম।”

২. কর্নেল স্যান্ডার্সঃ রেলওয়ে কর্মী, গ্যাস স্টেশন অপারেটর, ইন্সুরেন্স সেলসম্যান কোন পেশায় নিয়োজিত ছিলেননা তিনি? কিন্তু সফল হতে পারেননি। ষাট বছরের আগ পর্যন্ত ব্যর্থই ছিলেন তিনি। যিনি জীবনের ব্যর্থতার গ্লানি সহ্য করতে না পেরে করতে চেয়েছিলেন আত্মহত্যাও, মত পরিবর্তন করে ছোট্ট পরিসরে শুরু করেছিলেন KFC. বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে KFC-র প্রায় ৬০০ এর মত শাখা রয়েছে।

৩. আর্নল্ড শোয়ার্জ

নেগারঃ ‘দ্য টার্মিনেটর’ মুভি দিয়ে তিনি সারাবিশ্বে বেশ জনপ্রিয়। জন্ম অস্ট্রিয়ার একটি ছোট গ্রামের দরিদ্র পরিবারে। অভিনয় জগতে তার অসামান্য ক্যারিয়ার থাকলেও তিনি  রাজনীতিতে প্রবেশ করেন, ২০০৩ ও ২০০৬ সালে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্ণর নির্বাচিত হন।

৪. মাইকেল ব্লুমবার্গঃ প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও নিউইয়র্ক সিটির ১০৮ তম মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গকে আমরা অনেকেই চিনি। Bloomberg L.P.- তে চাকরী করেছেন প্রায় ১৫ বছর, পরে সে কোম্পানির CEO হন। ২০০২ সালে নিউইয়র্ক সিটির মেয়র নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি বিশ্বের ১০ম ধনী ব্যক্তি।

মাইকেল ব্লুমবার্গ

Was7199331

৫. রোনাল্ড রিগানঃ তার জন্ম ১৯১১ সালে আমেরিকার দরিদ্র এক পরিবারে। গ্রেজুয়েশন শেষ করার পর কিছুদিন একটি রেডিও স্টেশনে ভাষ্যকার হিসেবে কাজ করেন, কাজ করেছেন হলিউডেও। কিন্তু একসময় অভিনয় ছেড়ে রাজনীতিতে মনোনিবেশ করেন।

রোনাল্ড রিগান

১৯৬৬ সালে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর নির্বাচিত হন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দুইবার নমিনেশন পেতে ব্যর্থ হলেও, ১৯৮০ সালে রিপাবলিকান পার্টির হয়ে নমিনেশন পেয়েই তাক লাগিয়ে দেন সারাবিশ্বকে। জিমি কার্টারকে হারিয়ে নির্বাচিত হন যুক্তরাষ্ট্রের ৪০ তম প্রেসিডেন্ট!

৬. জেফ বেজোসঃ ২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর বিল গেটসের হাত থেকে বিশ্বের সেরা ধনীর মুকুট ছিনিয়ে নেন তিনি। ৩১ বছর বয়সে Wall Street এর সম্ভবনাময় ক্যারিয়ার ত্যাগ করে আমাজন প্রতিষ্ঠা করেন। যা তাকে পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে। আমাজন বর্তমানে  বিশ্বের সর্ববৃহৎ ই-কমার্স সাইট।

জেফ বেজোস

সুতরাং, হতাশ না হয়ে নিজের মেধাকে কাজে লাগিয়ে পরিশ্রম করে যান, সফলতা একদিন না একদিন ধরা দিবেই…

সূত্রঃ desimartini.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here